Ticker

6/recent/ticker-posts

E-Shram : ই শ্রমে নাম নথিভুক্ত করালে ব্যাঙ্ক থেকে কত টাকা কাটবে, জানুন

ই শ্রম থেকে কত টাকা কাটবে জেনে নিন

সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকার দেশের সমস্ত অসংগঠিত শ্রমিকদের একটি ডেটাবেস তৈরির জন্য ই-শ্রম প্রকল্প -র সূচনা করেছেন। এই প্রকল্পের জন্য একটি পোর্টাল ও চালু করা হয়েছে। যেখানে দেশের সমস্ত অসংগঠিত শ্রমিকেরা যেমন, রিক্সা চালক, ইট শ্রমিক, দিন মজুর, ফুটপাতের দোকানদার ইত্যাদি মানুষেরা নিজেদের নাম এই ই-শ্রম পোর্টালে নথিভুক্ত করাতে পারবে। এই পোর্টালে নাম নথিভুক্ত করলেই সকলকে ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন নম্বর (UAN) নম্বর সহ ই শ্রম কার্ড দেওয়া হচ্ছে। এই কার্ড থাকলে আপনি সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের সুবিধা পেতে পারবেন। ই শ্রম কার্ড থাকলে মাসে ৩০০০ টাকা পেনশন পেতে পারবেন।

আপনি যদি একজন অসংগঠিত শ্রমিক হয়ে থাকেন এবং এখনো ই শ্রম পোর্টালে নাম নথিভুক্ত না করিয়ে থাকেন তাহলে আজই করে ফেলুন, নাহলে বিভিন্ন সরকারি সুবিধা থেকে বঞ্চিত হতে পারেন। এই পোর্টালে নাম নথিভুক্ত করলে বিভিন্ন বীমা পাবেন আপনি। 

তবে সম্প্রতি শোনা যাচ্ছে ই শ্রম পোর্টালে নাম নথিভুক্ত করালে নাকি ব্যাঙ্ক একাউন্ট থেকে কেটে নিচ্ছে টাকা। কত টাকা কাটছে এবং কেন তা আলোচনা করবো আজকের প্রতিবেদনে। 

ই শ্রম পোর্টালে নাম নথিভুক্ত করলে আপনার ব্যাঙ্ক একাউন্ট থেকে টাকা কাটা হবে। কেন এই টাকা কাটা হবে জানেন ?

যখনই কেউ ই শ্রম পোর্টালে নাম নথিভুক্ত করাবে তখনই তার একাধিক বীমা চালু হয়ে যায়। যার মধ্যে দুইটি বীমা অটোমেটিক চালু হয়ে যায়। এবং বাকি দুটি বীমা চালু করার জন্য ব্যাংকে গিয়ে কথা বলে চালু করাতে হয়। 

ই শ্রম এর জন্য কত টাকা কাটে জেনে নিন : 
 ই শ্রমে নাম রেজিস্টার করলেই ১) প্রধানমন্ত্রী জীবনজ্যোতি বীমা যোজনা ও ২) প্রধানমন্ত্রী সুরক্ষা বীমা যোজনা এই দুটি চালু হয়ে যায়। এই দুটি বীমার জন্য কত টাকা কাটা হবে দেখে নিন - 

১) প্রধানমন্ত্রী জীবনজ্যোতি বীমা যোজনা : এই বীমার দরুন আপনার ব্যাংক একাউন্ট থেকে প্রতি বছর ৩৩০ টাকা কেটে নেওয়া হবে। তবে এই বীমার পরিবর্তে আপনার পরিবার আপনার মৃত্যুর ক্ষতিপূরণ হিসেবে ২ লক্ষ টাকা পাবে। 

২) প্রধানমন্ত্রী সুরক্ষা বীমা যোজনা : এই যোজনার জন্য আপনার ব্যাংক একাউন্ট থেকে বছরে ১২ টাকা করে কেটে নেওয়া হবে। এবং এই বীমার পরিবর্তে আপনার অক্সিডেন্ট -এ মৃত্যু হলে ২ লক্ষ টাকা ও আংশিক বিকলাঙ্গ হয়ে পরলে ১ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ হিসেবে দেওয়া হবে।


তবে আপনি চাইলেই এই বীমা গুলি বন্ধ করতে পারবেন। এর জন্য আপনাকে আপনার সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে গিয়ে লিখিত আবেদন জমা দিতে হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ